নগরীর ডবলমুরিং থানাধিন আগ্রাবাদ এলাকায় মারুফ চৌধুরী মিন্টু হত্যাকান্ডের এখনো একমাসও পূর্ণ হয়নি৷ অথচ এরই মধ্যে সেই হত্যা মামলার এজাহার ভূক্ত আসামীদের সাথে নিয়ে বিজয় দিবসের অনুষ্ঠান করে নিজের বাহাদুরি দেখালেন ২৮নং মোগলটুলি ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী নজরুল ইসলাম বাহাদুর৷

গতরাত (১৬ ডিসেম্বর) ৯টায় স্থানীয় পাঠানটুলী তরুণ গোষ্ঠি আয়োজিত বিজয় দিবসের পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে মিন্টু হত্যা মামলার এজাহার ভুক্ত ৫ আসামীকে সাথে নিয়ে আসন্ন চসিক নির্বাচনে কাউন্সিল প্রার্থী বাহাদুরের অংশ গ্রহণকে এলাকায় নিজের “বাহাদুরি” দেখালেন বলে মনে করছে স্থানীয় এলাকাবাসি৷ ছোট ভাইদের আমন্ত্রনে অনুষ্ঠানে অতিথি হয়ে অংশ নিয়েছেন বলে স্বিকার করেছেন নজরুল ইসলাম বাহাদুর৷

অনুষ্ঠানে মিন্টু হত্যা মামলার আসামী টিপু, মো:সাহেদ, মো:ফয়সাল সর্ব পিছনে মো:রাব্বি

গত ১৩ নভেম্বর চট্টগ্রাম নগরীর আগ্রাবাদ এলাকায় সন্ত্রাসীদের হামলায় গুরুতর আহত হয়ে পরদিন মারা যান যুবলীগ কর্মী মারুফ চৌধুরী মিন্টু৷ এই ঘটনায় নিহতের বোন বাদী হয়ে স্থানীয় ডবলমুরিং থানায় একটি এজাহার দায়ের করেন৷ গতকালের অনুষ্ঠানে মিন্টু হত্যা মামলার এজাহার ভুক্ত ২নং আসামী মোস্তাফা কামাল টিপু, ৪নং আসামী মোঃ মাহবুব প্রকাশ ইয়াবা মাহবু, ৫নং আসামী ফয়সাল, ৬নং আসামী শাহেদ ও ৭নং আসামী রাব্বি অংশ নেয়৷ এসময় মঞ্চে ২নং আসামী টিপু ও ৪নং আসামী মাহবুর হাতে ক্রেস্ট তুলে দেন কাউন্সিলর প্রার্থী বাহাদুর৷ মিন্টু হত্যা মামলার আসামীরা কাউন্সিলর প্রার্থী বাহাদুরের অনুসারি। অপর দিকে নিহত মিন্টু আরেক কাউন্সিলর প্রার্থী সদ্য সাবেক কাউন্সিলর আব্দুল কাদেরের অনুসারী ছিলেন৷

অভিযোগ আছে আসন্ন চসিক নির্বাচনে মোগলটুলি এলাকার প্রধান দুই কাউন্সিলর প্রার্থী বাহাদুর ও কাদের’র মধ্যে দীর্ঘদিনের দ্বন্দ চলছে। এছাড়া নিহতের বড় ভাই স্থানীয় যুবলীগ নেতা আলাউদ্দিন চৌধুরী আলোর সাথে আরেক যুবলীগ নেতা মোস্তাফা কামাল টিপু’র এলাকায় আধিপত্য নিয়ে বিরোধের জেরে এই হত্যাকান্ড সংঘটিত হয়। হত্যাকান্ডের এক মাস পূর্ন না হতেই হত্যা মামলার এজাহার ভুক্ত আসামীরা উচ্চ আদালত থেকে জামিন নিয়ে আবারো এলাকায় নিজেদের শক্তিমত্তা প্রদর্শন শুরু করছে।

ইতিমধ্যে স্থগীত হওয়া চসিক নির্বাচনের তারিখ ঘোষনা দেয়ার পর কাউন্সিলর প্রার্থী বাহাদুরের অনুসারিরা এলাকায় নিজেদের অবস্থান জানান দিতে নানান তৎপরতা শুরু করে৷ গতকালের অনুষ্ঠানের মাধ্যমে চিহ্নিত সন্ত্রাসীরা আনুষ্ঠানিক ভাবে আবারো আত্মপ্রকাশ ঘটালো বলে মনে করছে স্থানীয় এলাকাবাসী৷ নির্বাচনের দিন যতো ঘনিয়ে আসছে সন্ত্রাসীরা ততটাই বেপরোয়া হয়ে উঠছে৷ তবে কাউন্সিলর প্রার্থী বাহাদুর বলছেন, প্রার্থী হিসেবে এলাকার ছোট ভাইদের আমন্ত্রনে তাকে সাড়া দিতে হয়৷ তবে স্থানীয়রা জানিয়েছেন, চসিক নির্বাচনে ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদের দুই প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে ইতিমধ্যে একাধিকবার সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে তাই নতুন কোন সংঘাতের আশংকা করছে এলাকাবাসী৷

তবে স্থানীয় ডবলমুরিং থানার ওসি (তদন্ত) মাসুদুর রহমান বলেন, মিন্টু হত্যা মামলার আসামীরা মহামান্য উচ্চ আদালত থেকে বর্তমানে জামিনে আছে৷ এই মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সর্বোচ্চ পেশা দ্বারিত্বের সাথে কাজ চালিয়ে যাচ্ছে৷ জামিনের মেয়াদ শেষে আসামীরা আদালতে হাজির হলে আদালত যে স্বিদ্ধান্ত দিবেন আমরা সেই মোতাবেক আমরা পরবর্তি ব্যবস্থা নিবো৷ এছাড়া আমাদের থানা এলাকার সার্বিক আইন শৃংখলা রক্ষায় পুলিশ তৎপর আছে৷

Leave a Reply