করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে সরকার এক সপ্তাহের জন্য সারা দেশে গণপরিবহন চলাচলে নিষেধাজ্ঞা দেয়। রাইড শেয়ারিং সার্ভিসও এর মধ্যে ছিল। তবে গণপরিবহন চললেও বন্ধ আছে রাইড শেয়ারিং। ফলে রাজধানীর কুড়িল বিশ্বরোড, মিন্টু রোড, আগারগাঁও ও বনানীসহ বেশ কয়েকটি এলাকায় রাইড শেয়ারের চালকরা এ সার্ভিসটি চালুর দাবিতে বিক্ষোভ  করছেন।

আজ বুধবার থেকে নগর পরিবহন চালু রাইড শেয়ারিং চালুর দাবিতে রাজধানীর মিন্টো রোড, আগারগাঁও, মিরপুর,বনানী, ক্ষিলক্ষেতসহ বিভিন্ন স্থানে এই বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়।

সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ৩০-৪০টি মোটরসাইকেল আগারগাঁওয়ের দিক থেকে মিরপুর ১০ নম্বর মোড়ে এসে থামে। এসময় চালকরা রাইড শেয়ারিং চালুর দাবিতে বিভিন্ন স্লোগান দিতে থাকেন। সেখানে কিছুক্ষণ অবস্থান করে মিরপুর-১৪ নম্বরের দিকে রওনা দেন তারা। একই সময় রাজধানীর মিন্টু রোডের মাথায় ডিএমপি হেড কোয়ার্টারে পাশে জড়ো হয়ে যাত্রী পরিবহনকারী মোটরসাইকেল চালকরা বিক্ষোভ করছেন।

চালকরা বলছেন, নিষেধাজ্ঞার মধ্যে গণপরিবহন চালু করা হয়েছে। অথচ রাইড শেয়ারিং বন্ধ রাখা হচ্ছে। চালকরা রাস্তায় নামলেই অহেতুক হয়রানি ও মামলা দেওয়া হচ্ছে। তারা বলেন, ঢাকাসহ সারা দেশে এক বিশাল জনগোষ্ঠী এই রাইড শেয়ারিং সার্ভিসের সঙ্গে যুক্ত রয়েছে। করোনা নিষেধাজ্ঞা তাদের বিপাকে ফেলে দিয়েছে। একারণে তাঁরা বিক্ষোভে নামতে বাধ্য হয়েছেন। অবিলম্বে রাইড শেয়ারিং চালু করতে দেওয়ার দাবি জানান তারা।

Leave a Reply